আহবায়কসহ আড়াই শতাধিক নেতা কর্মীর বিরূদ্ধে মামলা


২৪ ঘন্টা বার্তা   প্রকাশিত হয়েছেঃ   ২৭ মার্চ, ২০২১

অনলাইন ডেস্ক::: শহীদ মিনারে ফুল দেওয়াকে কেন্দ্র করে সরাইলে বিএনপি’র দুই গ্রƒপের সংঘর্ষের ঘটনায় আহ্বায়ক আনিছুল ইসলাম ঠাকুরসহ ২ শতাধিক নেতা কর্মীর বিরূদ্ধে মামলা করেছে পুলিশ। প্রধান আসামি করা হয়েছে আহ্বায়ক কমিটির সদস্য দুলাল মাহমুদ আলীকে। গত শুক্রবার দিবাগত রাতে অভিযান চালিয়ে পুলিশ আরো ৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। দুই দফা ৯ জন নেতা কর্মীকে গ্রেপ্তার করে শনিবার আদালতে প্রেরণ করেছে। পুলিশি গ্রেপ্তার এড়াতে উভয় গ্রƒপের নেতা কর্মীরা গাঢাকা দিয়েছেন। মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ২৬ ফেব্রƒয়ারী সরাইল উপজেলা বিএনপি’র আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণার পরই একটি গ্রƒপ মাঠে নেমে পড়ে। বিক্ষোভ মিছিল পথ সভা ও মহাসড়কে মানববন্ধনে উত্তাল হয়ে ওঠে সরাইল। এরই জের ধরে গত ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবস ও জাতীয় দিবসে সরাইল উপজেলা সদরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দিতে আসেন আহ্বায়ক ও সদস্য সচিবের নেতৃত্বে শতাধিক নেতা কর্মী। এ সময় প্রতিপক্ষ যুবদল ছাত্রদলের নেতা কর্মীরা তাদের হামলা চালায়। উভয় গ্রƒপের লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে দাঙ্গায় লিপ্ত হয়। সংঘর্ষ চলাকালে মৃদু লাঠি চার্জ করে পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। তারা পুলিশের কর্তব্য কাজে বাধাঁ দেয়। আইনশৃঙ্খলা রক্ষার কাজে নিয়োজিত ৬-৮ জন পুলিশ সদস্যকে মারধর করে আহত করে। জন সাধারণের স্বাভাবিক চলাফেরায় বিঘ্নের সৃষ্টি করে। ঘটনার দিন অভিযান চালিয়ে পুলিশ দাঙ্গায় জড়িত ৬ জন নেতা কর্মীকে গ্রেপ্তার করে। পরে গত শুক্রবার দিবাগত গভীর রাতে অভিযান চালিয়ে মো. রিফাত মিয়া (২১). মো. অন্তর মিয়া (২১) ও মো. আলাল মিয়া (৩৮) নামের তিনজনকে গ্রেফতার করেন। ওদিকে সংঘর্ষের ঘটনায় আহত এস আই হোসনে মোবারক বাদী হয়ে আড়াই শতাধিক নেতা কর্মীর বিরূদ্ধে মামলা করেছেন। মামলায় নামীয় আসামি ৮৫ জন আর অজ্ঞাতনামা দুই শত। মোট আসামি আড়াই শতাধিক। সরাইল থানার কর্মকর্তা ইনচার্জ (ওসি) এ এম এম নাজমুল আহমেদ বলেন, আসামীদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে। এ মামলায় তদন্তে আরো নতুন আসামি যুক্ত হতে পারে।