মধ্যযুগীয় কায়দার নির্যাতনের স্বীকার হলো শিশু মাদ্রাসা ছাত্র


২৪ ঘন্টা বার্তা   প্রকাশিত হয়েছেঃ   ২৩ মার্চ, ২০২১

চিতলমারী(বাগেরহাট)থেকে অলোক মজুমদার:::মধ্যযুগীয় কায়দার নির্যাতনের স্বীকার হলো শিশু মাদ্রাসা ছাত্র।কয়েক দিন আগের ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতে এবার বাগেরহাটের রামপালে এ ঘটনা ঘটলো।শিশু শিক্ষার্থী মোঃশুকুরকে হাত পা বেঁধে মাদ্রাসার ঘরের আড়ার সাথে ঝুলিয়ে নির্যাতন করে মাদ্রাসা শিক্ষক হাফেজ সৈয়দ মোঃত্তসমান গনি।অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেফতার করে রামপাল থানা পুলিশ।মোঃশুকুর উপজেলার শ্রীফলতলা জে জি আর হাজী আরিফ হাফেজিয়া মাদ্রাসার হেফজ বিভাগের ছাত্র।তাকে মাদ্রসায় বসে রবিবার নির্যাতিত হতে হয়।
শিশুটির পিতা গাববুনিয়া গ্রামের মোঃমনি শেখ রামপাল থানায় রাতে শিশু নির্যাতন মামলা করলে পুলিশ অভিযান চালিয়ে গনিকে গ্রেফতার করে।
মনি শেখ বলেন আমার ছেলে সন্ধ্যার সময় বাড়ি আসে এবং ভোর হতেই মাদ্রাসায় চলে যায়।না বলে বাড়িতে আসার জন্য আমার না বালক শিশুকে মারাত্মক নির্যাতন করে ত্তসমান গনি। হাত পা বেঁধে মাদ্রাসার ঘরের আড়ার সাথে ঝুলিয়ে মারে।মানুষের কাছে শুনে মাদ্রাসায় যেয়ে লোকজনের সহায়তায় ছেলেকে উদ্ধার করি।আমার ছেলে অসুস্থ।
কোরানে হাফেজ বানানোর জন্য বাড়ির কাছের মাদ্রাসায় ভর্তি করি।কিন্তু আমার ছেলেকে না বলে বাড়ি আসার জন্য শারীরিক নির্যাতন হতে হবে তা ভাবিনি। ত্তসমান গনির বাড়ি খুলনার বৈটাকাঠা উপজেলায়।
রামপাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ত্তসি)সামসুদ্দীন বলেন শিশুটির পিতা ত্তসমান গনির বিরুদ্ধে শিশু নির্যাতন ও মারধরের মামলা করলে পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করে। আসামীকে আদালতে পাঠালে চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিট্রেট স্বপন কুমার সরকার তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।