বাউফলে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে জখম


২৪ ঘন্টা বার্তা   প্রকাশিত হয়েছেঃ   ২২ মার্চ, ২০২১

অনলাইন ডেস্ক::পটুয়াখালীর বাউফলে বাউফল পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি ইব্রাহিম ফারুক ও পটুয়াখালী জেলা পরিষদ সদস্য স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি হারুন অর রশিদ খানের উপর সন্ত্রাসী হামলার এক মাসের মাথায় হাসান মাহামুদ নামের এক ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে জখম করেছে সšা¿াসীরা। রোববার দিবাগত রাত সোয়া এগারটার দিকে উপজেলার মদনপুরা ইউঃপির দরগাবাড়ী এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে। এ সময় স্থানীয়, আত্মীয়স্বজন রা তাকে উদ্ধার করে বাউফল হাসপাতারে নিয়ে আসলে জরুরী বিভাগের চিকিৎসক তাকে বরিশাল সেবাচিমএ প্রেরন করেন। রাতেই তার অবস্থার অবনতি ঘটলে তাকে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে প্রেরন করেন্ তিনি এখন পঙ্গু হাসপাতারে চিকিৎসাধীন আছেন। বাউফলে মেয়র ও এমপি গ্রুপের মধ্যকার বিরোধের জের ধরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে হাসান ও তার পরিবার নিশ্চিত করেছে। হাসান মদনপুরা গ্রামের দেলোয়ার গাজীর বড় ছেলে এবং স্থানীয় সাংসদ ও সাবেক চিফহুইপ আলহাজ্ব আ.স.ম ফিরোজ এমপি সমর্থিত মদনপুরা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক বলে জানিয়েছে বাউফল উপজেলা ছাত্রলীগের একাংশের সভাপতি আলআমিন তোহা। হাসানের মা শামসুন্নাহার বেগম জানিয়েছেন মেয়র জুয়েল সমর্থিত সন্ত্রাসীরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে। তার ছেলে এখন পঙ্গু হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এ ঘটনায় বাউফল থানায় কোন মামলা হয়নি। এ ঘটনায় সোমবার সকাল ১০টায় বিক্ষোভ মিছিল সমাবেশ করেছে বাউফল উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠন।
জানা গেছে, বাউফলে রাজনৈতিক বিরোধের জের ধরে গত বছর ২৯ রমজান বাউফল থানার সামনে খুন হয় যুবলীগ নেতা তাপস। এ ঘটনায় মেয়র জিয়াউল হক জুয়েলকে প্রধান আসামি করে মামলা করা হয়েছে। এ বছর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে বাউফল পাবলিক মাঠে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দেয়ার ঘটনার জেড় ধরে একই ব্যক্তিরা ২১ ফেব্্রুয়ারী সন্ধ্যা সোয়া ৭টার দিকে বাউফল রিক্সাষ্টান্ডে জেলা পরিষদ যাত্রী ছাউনিতে চা পানকালীন সময় বাউফল পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি শহীদ সেলিম সহোদর ইব্রাহিম ফারুক ও জেলা পরিষদ সদস্য বাউফল প্রেসক্লাব সাবেক সভাপতি বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক ও পটুয়াখালী জেলার সভাপতি হারুন অর রশিদ খানের উপর হামলা করে। এ ঘটনায় ইব্রাহিম ফারুকের একটি চোখ তুলে ফেলে ও হারুন অর রশিদ খানের মাথায় কুপিয়ে কাটা জখম করে। এসব ঘটনার ধারাবাহিকতায় রোববার আনুমানিক রাত সোয়া এগারটায় মদনপুরা দরগাবাড়িতে উরুস মাহফিল থেকে বাড়ি ফেরার পথে মাঝারের পুর্বপার্শে হাসানের বাড়ির পশ্চিম পার্শে ক্ষেতের মধ্যে পথরোধ করে এলোপাতারিভাবে কুপিয়ে মাথা, বাম হাতের তালু ও কনুই থেকে হাত প্রায় বিচ্ছিন্ন করে ফেলেছে। এ সময় তার ডাক চিৎকারে বাড়ি ও উরুস মাহফিল থেকে লোকজন ছুটে আসে। মুমুর্ষ অবস্থায় বাউফল হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে দ্রুত বরিশাল সেবাচিম এ প্রেরন করেন। রাতেই হাসানের অবস্থার অবনতি ঘটলে হাসানকে ঢাকা পঙ্গু হাসপতারে রেফার করা হয়।এ ঘটনায় বাউফল উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠন মিছিল শেষে বাউফল ইলিশ চত্বরে সমাবেশ করেছেন। সমাবেশ থেকে অভিলম্বে সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করে আইনের হাতে সোপর্দ করার আহ্বান জানানো হয়। হাসানের মামা টেলিফোনে জানিয়েছেন আজ সকালে তার হাতের একটি অপারেশন হয়েছে, ২৪ ঘন্টা আগে কিছুই বলা যাবে না। বাম হাতের অবস্থা মোটেও ভাল না। মামলার প্রস্তুতি চলছে। বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান জানিয়েছেন,এ ঘটনা তিনি শুনেছেন, অভিযোগ পেলেই ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।